অপমান সইতে না পেরে কাপ্তাইয়ে কিশোরের আত্মহত্যা

চুরির অভিযোগে নির্যাতন

রাঙামাটি জেলার কাপ্তাই উপজেলায় চুরি করার অভিযোগে প্রতিবেশিদের নির্যাতন ও মা’র গায়ে হাত তোলায় অপমান সইতে না পেরে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেয় মোঃ জাকির হোসেন বিজয়(১৪) নামের এক কিশোর। সে মৃত মনির হোসেনের কনিষ্ঠ পুত্র।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,গত সোমবার রাতে রাঙামাটি জেলার কাপ্তাই উপজেলার চন্দ্রঘোনা ইউনিয়নাধীন ফকিরাঘোনায় এই ঘটনা ঘটে। ঘটনার দিন সন্ধ্যায় প্রতিবেশি শাহজাহান গার্ডের ঘর থেকে ১টি মেক্সী,১টি জামা চুরির অভিযোগে প্রতিবেশি কয়েক ব্যক্তি ছেলেটিকে বেদম প্রহার করে উপযুক্ত বিচার চেয়ে বিজয়ের পরিবারের নিকট তাকে বুঝিয়ে দেওয়া হয়। এরপর বিজয়কে তার মা বকাঝকাসহ মারধরও করে। এক পর্যায় প্রতিবেশিরা পুলিশ ডেকে এনে বিজয়কে আটক করতে বলে এবং বিজয়ের মা’ কেও মারধর করে। রাগে,ক্ষোভে অপমান সইতে না পেরে বিজয় ঘরের সিলিংয়ের সাথে ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে বলে তারা জানায়।

কিশোর বিজয়ের মা সালমা বেগম জানান, ওইদিন সন্ধ্যায় চুরির অভিযোগে প্রতিবেশি ধন মিয়া,তার ছেলে মনা,হোসেনসহ প্রতিবেশি জাহাঙ্গীর,বশির, ফারুক,আলমগীরসহ বেশ কয়েক ব্যক্তি মিলে ছেলেকে মারধর করে উপযুক্ত বিচার চেয়ে বিজয়কে আমার জিম্মায় দেয়। বিষয়টি শুনে মা’ সালমাও বিজয়কে বকাঝকা করে এবং শলা দিয়ে মারে। এতেও ওই প্রতিবেশিরা শান্ত হয়নি। তারা স্থানীয় ডিসিএল বাংলার পুলিশ নিয়ে আসে বিজয়কে ধরিয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে। পুলিশ বিষয়টি শুনে অভিযোগকারীদের কিছুক্ষণ পরে উভয়পক্ষকে আরআই এর (ডিসিএল বাংলার পুলিশ ইন্সপেক্টর) নিকট যেতে বলেন বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য। পুলিশ চলে যাবার পর এনিয়ে সালমার সাথে অভিযোগকারীদের তর্কাতর্কি শুরু হয় এবং এক পর্যায়ে অভিযোগকারীরা সালমার গায়েও হাত তোলে বলে তিনি জানান।

আরো জানা গেছে, এরই ফাঁকে অপমান সইতে না পেরে রাত প্রায় ৯ টার সময় বিজয় গিয়ে ঘরের সিলিংয়ে ফাঁস দেয়।কিছুক্ষণ পরই ঘটনা টের পেয়ে ফাঁস থেকে নামিয়ে তাকে রাত প্রায় ৯ টা ৪০ মিনিটের সময় চন্দ্রঘোনা খ্রীষ্টিয়ান হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করে। কান্না জড়িত কন্ঠে সালমা বলেন, প্রতিবেশিদের নির্যাতন ও অপমান সইতে না পেরে আমার ছেলে আত্মহত্যার করেছে, আমি এর বিচার চাই।

কাপ্তাই থানার ওসি মোঃ নাসির উদ্দিন বলেন, আমিও শুনেছি প্রতিবেশিরা কিশোর বিজয় এবং তার মা’ কে মারধর করেছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য মঙ্গলবার রাঙামাটি প্রেরন করা হয়েছে বলেও ওসি নাসির জানান।

আরও পড়ুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রকাশিত হবে না।